মঙ্গলবার ২১ মে ২০২৪, জ্যৈষ্ঠ ৭ ১৪৩১, ১৩ জ্বিলকদ ১৪৪৫

অর্থনীতি

বেসরকারি ব্যাংক হিসেবে লোকসানে সর্বোচ্চ - ন্যাশনাল ব্যাংক

 প্রকাশিত: ১০:৩১, ২ মে ২০২৩

বেসরকারি ব্যাংক হিসেবে লোকসানে সর্বোচ্চ - ন্যাশনাল ব্যাংক

বেসরকারি খাতের প্রথম প্রজন্মের ন্যাশনাল ব্যাংক ২০২২ সালে ৩ হাজার ২৬০ কোটি টাকা লোকসান দিয়েছে। ফলে ২০২১ সালের মতো গত বছরের জন্যও শেয়ারধারীদের কোনো লভ্যাংশ না দেওয়ার সুপারিশ করেছে ন্যাশনাল ব্যাংকের পরিচালনা পর্ষদ।

আমাদের দেশে বিশেষ করে বেসরকারি খাতের ব্যাংকগুলো নিয়মিতভাবেই প্রকৃত আর্থিক অবস্থা গোপন করে তথ্য প্রকাশ করে। তথ্য গোপনের কারণ কিন্তু সবসময় এক নয়। প্রয়োজনে বা অপ্রয়োজনে, বলা যায় শুধু বদঅভ্যাসবসত ব্যাংকগুলো যে এই কাজ করে আসছে তা ব্যাংক সংশ্লিষ্ট অনেকেই জানেন। দেশের অনেক ব্যাংকের আর্থিক অবস্থা খারাপ হলেও প্রকৃত তথ্য প্রকাশ হয় না বললেই চলে। এর মধ্যে বেসরকারি খাতের এই ব্যাংক বড় ধরনের লোকসানের তথ্য প্রকাশ করেছে। এর আগে কোনো বেসরকারি ব্যাংকে একক বছরে এত লোকসানের খবর দেয়নি। 
বেসরকারি খাতের ন্যাশনাল ব্যাংক একসময় ছিল সর্বোচ্চ মুনাফা অর্জনকারী ব্যাংক। তবে প্রভাবশালী ব্যবসায়ী ও কেন্দ্রীয় ব্যাংকের তথ্য মতে, ব্যাংকটির মালিকপক্ষের নামে-বেনামে ঋণ ব্যাংকটিকে বিপদে ফেলেছে। ফলে দিনে দিনে বেড়ে চলছে খেলাপি ঋণ। ন্যাশনাল ব্যাংকের ২০২০ সালেও খেলাপি ঋণের হার ছিল ১০ শতাংশের নিচে। ২০২১ সালে খেলাপি ঋণ বেড়ে হয় ৯ হাজার ২৬১ কোটি টাকা, যা বিতরণ করা ঋণের ২০ দশমিক ৮০ শতাংশ। ২০২২ সাল শেষে খেলাপি ঋণের হার দাঁড়িয়েছে ২৫ দশমিক ৩৬ শতাংশ, যা ব্যাংকটিকে লোকসানে যেতে বাধ্য করেছে।

এদিকে ব্যাংকটি ২০২২ সালে ২ হাজার ৩৪৭ কোটি টাকার সুদ মওকুফ করেছে। এসব সুদ গত বছরগুলোয় ব্যাংকটি তাদের আয়ের হিসাবে দেখিয়েছিল। আবার মুনাফা থেকে সরকারকে করও পরিশোধ করেছে। লভ্যাংশও বিতরণ করেছে। এখন সুদ মওকুফ করায় ব্যাংকটি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। অন্য হিসাব থেকে এই অর্থ সমন্বয় করতে হচ্ছে। ফলে বড় অঙ্কের লোকসানে পড়েছে।

গত রোববার ব্যাংকের পরিচালনা পর্ষদের বৈঠকে ২০২২ সালের নিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন অনুমোদনের পর প্রকাশিত তথ্যে দেখা গেছে, ২০২২ সালের জানুয়ারি থেকে ডিসেম্বর পর্যন্ত ১২ মাসে ন্যাশনাল ব্যাংক শেয়ারপ্রতি লোকসান দিয়েছে ১০ টাকা ১৩ পয়সা। ৩ হাজার ২১৯ কোটি টাকা পরিশোধিত মূলধনের ব্যাংকটির শেয়ার সংখ্যা ৩২১ কোটি ৯৭ লাখ ৩৯ হাজার ৫৭০টি। এ হিসাবে লোকসান হয়েছে ৩ হাজার ২৬০ কোটি টাকা।

অনলাইন নিউজ পোর্টাল ২৪

মন্তব্য করুন: