শনিবার ০২ জুলাই ২০২২, আষাঢ় ১৭ ১৪২৯, ০১ জ্বিলহজ্জ ১৪৪৩

যিয়ারতে বাইতুল্লাহ: মুমিনের সাধ, মুমিনের স্বপ্ন

বাইতুল্লাহ! কী সুন্দর নাম! এ নাম শোনার সাথে সাথে মুমিনের মনেস্নিগ্ধ অনুভ‚তি সৃষ্টি হয়। অন্যরকম ভালোলাগা মনকে দোলা দেয়। হৃদয়ের ভেতর ‘বাইতুল্লাহ’ যিয়ারতের আকুতি জেগে ওঠে। তাই একজন মুমিন হৃদয়-গভীরে বাইতুল্লাহ যিয়ারতের স্বপ্ন পুষতে থাকে। আর এ স্বপ্ন তার ঈমানকে নতুনভাবে সজীব করে তোলে।

বৃহস্পতিবার, ৯ জুন ২০২২, ০০:৪৪

শাওয়ালের ছয় রোযা

রমযানের পরের মাস শাওয়াল। আর রমযানের আগের মাস হল শাবান। শাওয়াল ও শাবান হল রমযান সংশ্লিষ্ট ও রমযানের আগে-পরের মাস। তাই রমযানের সম্মানার্থে শাবান ও শাওয়াল মাস এবং এ দুই মাসে রোযা রাখার প্রতি যত্নবান হওয়া উচিত। বিশেষত শাওয়াল মাসে ছয়টি রোযা রাখার ব্যাপারে যত্নবান হওয়া চাই। কেননা হাদীস শরীফে এর প্রতি উৎসাহ দেওয়া হয়েছে। আবু আইয়ূব আনছারী রা. বলেন, নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন- مَنْ صَامَ رَمَضَانَ ثُمّ أَتْبَعَهُ سِتّا مِنْ شَوّالٍ، كَانَ كَصِيَامِ الدّهْرِ.

রোববার, ২২ মে ২০২২, ২৩:০১

অতুলনীয় কুরআন

الحمد لله، وسلام على عباده الذين اصطفى. কায়রো ইউনিভার্সিটির ইসলামিক হিস্ট্রি এন্ড সিভিলাইজেশনের প্রফেসর ড. আহমাদ শালাবী কুরআন কারীম সম্পর্কে তার নিজের একটি অভিজ্ঞতা এভাবে আলোচনা করেছেন- ক্যাম্ব্রিজ ইউনিভার্সিটিতে আমার এক সহপাঠী আমাকে বলেছিল, আমাকে ইসলাম সম্পর্কে বল এবং প্রমাণ কর যে, তা আল্লাহর পক্ষ থেকে এসেছে।

শনিবার, ২১ মে ২০২২, ২২:৪৬

রোযার কথা মনে থাকুক বছরজুড়ে

রমযানুল মোবারক শেষ হয়ে গেল। আল্লাহর মুর্কারাব ও নেককার বান্দারা রমযান আসার আগেই তার আপেক্ষায় থাকেন। প্রস্তুতি নিতে থাকেন। রমযান যখন শেষ হয়ে যায়, খুব স্বাভাবিক কারণেই তাদের কষ্ট হতে থাকে। তবে এটাও স্বাভাবিক কথা যে, রমযান আসবে, যাবে। দুনিয়ার মধ্যেও অনেককে ইস্তেকবাল করতে হয়, আবার মন না চাইলেও তাকে বিদায় দিতে হয়। আপনজনকে বিদায় দেওয়ার অনুভূতি যেমন কষ্টের, প্রিয় কিছুকে হারিয়ে ফেলার অনুভূতিও তেমনই হৃদয়বিদারক। তবে না চাইলেও যেমনিভাবে মানুষকে এই কষ্টের স্বাদ নিতে হয় তেমনি সে হারিয়ে যাওয়া ব্যক্তি বা বস্তুর স্মৃতি ধারণ করে সান্ত্বনা খোঁজারও চেষ্টা করে। রমযানও যাচ্ছে, বিদায় হচ্ছে। তারও এরকম বেশ কিছু বৈশিষ্ট্য রয়েছে; সেগুলোর কিছুটাও যদি আমরা রোযার পরেও ধারণ করে রাখতে পারি, তাহলেই সার্থকতা।

সোমবার, ২ মে ২০২২, ১৫:৪০
ঈদ উদযাপন: সালাফের কিছু অবস্থা ও অনুভূতি

মেহেরবান আল্লাহ আমাদের দুটি ঈদ দান করেছেন। ঈদ হল খুশির দিন, আনন্দের মৌসুম। ঈদে আমরা খুশি ও আনন্দ প্রকাশ করব এবং দরিদ্র ও অসহায়দের সুখ ও আনন্দদানের চেষ্টা করব। তবে স্মরণ রাখতে হবে, মুসলিমের আনন্দ-উদ্যাপন আর অমুসলিমের আনন্দ-উদ্যাপন এক হতে পারে না। মুমিনের আনন্দ-উদ্যাপন হয় আল্লাহর পছন্দনীয় আমলের মাধ্যমে আর অমুসলিমের আনন্দ-উদ্যাপন হয় তাঁর নাফরমানির মাধ্যমে। মুসলিমের জীবন ও চিন্তা আখেরাতকেন্দ্রিক আর কাফেরের সবকিছু দুনিয়াকেন্দ্রিক। আল্লাহ তাআলা বলেন- وَ فَرِحُوْا بِالْحَیٰوةِ الدُّنْیَا وَ مَا الْحَیٰوةُ الدُّنْیَا فِی الْاٰخِرَةِ اِلَّا مَتَاعٌ. তারা (অর্থাৎ কাফেরগণ) পার্থিব জীবনেই উল্লসিত, অথচ আখেরাতের তুলনায় পার্থিব জীবন তো মামুলি ভোগমাত্র। -সূরা রা‘দ (১৩) : ২৬

সোমবার, ২ মে ২০২২, ১৫:৩৮
জান্নাত বিষয়ক আয়াত সমূহ - ৭ম পর্ব

অর্থ: বল, ‘আমি কি তোমাদেরকে এর চেয়েও উত্তম বস্তুর সংবাদ দেব? যারা তাকওয়া অর্জন করে, তাদের জন্য রয়েছে তাদের রবের নিকট জান্নাত, যার তলদেশ দিয়ে প্রবাহিত হয় নহরসমূহ। সেখানে তারা স্থায়ী হবে। আর পবিত্র স্ত্রীগণ ও আল্লাহর পক্ষ থেকে সন্তুষ্টি’(১)। আর আল্লাহ বান্দাদের সম্পর্কে সম্যক দ্রষ্টা। [সূরা আলে-ইমরান: ১৫]

শনিবার, ২৩ এপ্রিল ২০২২, ১৩:১৭

দুআ: মুমিন জীবনের অনন্য পাথেয়

আমাদের অভিভাবক আল্লাহ তাআলা। বাবা-মা, দাদা-দাদী, নানা-নানী প্রমুখ মুরুব্বীগণ হলেন ক্ষণস্থায়ী দুনিয়ার অস্থায়ী অভিভাবক। তাদের ছায়া আমাদের উপর ততক্ষণই থাকে যতক্ষণ আল্লাহ তাআলা চান। বস্তুত, আমাদের অভিভাবক শুধুই আল্লাহ তাআলা। তিনিই আমাদের সৃষ্টি করেছেন। তাঁর কাছেই আমাদের প্রত্যাবর্তন করতে হবে। সুতরাং দুনিয়ার এই হায়াতটুকুর অভিভাবকও তিনি এবং আখেরাতের অভিভাবকও তিনিই; তিনি চিরস্থায়ী অভিভাবক। জীবনের যত প্রয়োজন তিনিই পূরণ করেন এবং অসহায়ত্বের সময় তিনিই একমাত্র সহায়।

বৃহস্পতিবার, ১৪ এপ্রিল ২০২২, ১৪:৫৪

মাহে রমযান: ফযীলত ও করণীয়

মাহে রমযান বছরের বাকি এগার মাস অপেক্ষা অধিক মর্যাদাশীল ও বরকতপূর্ণ মাস। এ মাসের বিশেষত্ব অনেক। ১. এ মাসেই মানুষ ও জিন জাতির মুক্তির সনদ পুরো কুরআন মাজীদ একত্রে লাওহে মাহফূয থেকে প্রথম আসমানে বাইতুল ইযযতে অবতীর্ণ হয় এবং রাসূলে কারীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম-এর নিকট সর্বপ্রথম এ মাসেই ওহী অবতীর্ণ হয়। কুরআন মাজীদে ইরশাদ হয়েছে- شَهْرُ رَمَضَانَ الَّذِیْۤ اُنْزِلَ فِیْهِ الْقُرْاٰنُ هُدًی لِّلنَّاسِ وَ بَیِّنٰتٍ مِّنَ الْهُدٰی وَ الْفُرْقَانِ... রমযান মাসই হল সে মাস, যাতে নাযিল  করা হয়েছে কুরআন, যা মানুষের জন্য হেদায়াত এবং সত্যপথযাত্রীদের জন্য সুস্পষ্ট পথনির্দেশ। -সূরা বাকারা (২) : ১৮৫

শনিবার, ৯ এপ্রিল ২০২২, ১৪:৫১

জান্নাত বিষয়ক আয়াত সমূহ - ৬ষ্ঠ পর্ব

আর তোমরা মুশরিক নারীদের বিয়ে করো না, যতক্ষণ না তারা ঈমান আনে এবং মুমিন দাসী মুশরিক নারীর চেয়ে নিশ্চয় উত্তম, যদিও সে তোমাদেরকে মুগ্ধ করে। আর মুশরিক পুরুষদের সাথে বিয়ে দিয়ো না, যতক্ষণ না তারা ঈমান আনে।

বৃহস্পতিবার, ২৪ মার্চ ২০২২, ২১:১৮

জান্নাত বিষয়ক আয়াতসমূহ - ৫ম পর্ব

নাকি তোমরা ভেবেছ যে, তোমরা জান্নাতে প্রবেশ করবে(১) অথচ এখনো তোমাদের নিকট তাদের মত কিছু আসেনি, যারা তোমাদের পূর্বে বিগত হয়েছে। তাদেরকে স্পর্শ করেছিল কষ্ট ও দুর্দশা এবং তারা কম্পিত হয়েছিল।

বুধবার, ২৩ মার্চ ২০২২, ২০:০২

জান্নাত বিষয়ক আয়াতসমূহ - ৪র্থ পর্ব

আর তারা বলে, ইয়াহূদী কিংবা নাসারা ছাড়া অন্য কেউ জান্নাতে প্রবেশ করবে না(১)। এটা তাদের মিথ্যা আশা। বল, ‘তোমরা তোমাদের প্রমাণ নিয়ে আস, যদি তোমরা সত্যবাদী হয়ে থাক’।[সূরা বাকারা: ১১১]

মঙ্গলবার, ২২ মার্চ ২০২২, ১৪:২২

কুরআনে কারীমের তরজমা-তাফসীর পাঠ ও তাদাব্বুর প্রসঙ্গ

আজকের আলোচনার শিরোনাম খুবই গুরুত্বপূর্ণ- কুরআনে কারীমের তরজমা ও তাফসীর পাঠ। কিন্তু এ বিষয়ে আমার নিজের পক্ষ থেকে কিছু বলা কঠিন। আমি চেষ্টা করব আমাদের পূর্বসূরি মনীষী ব্যক্তিবর্গ ও বর্তমান সময়ের বিজ্ঞ ওলামায়ে কেরাম যে আলোচনা করেছেন তা একটু গুছিয়ে উপস্থাপন করতে।

মঙ্গলবার, ২২ মার্চ ২০২২, ১৪:০৩

জান্নাত বিষয়ক আয়াতসমূহ - ৩য় পর্ব

وَالَّذِينَ آمَنُوا وَعَمِلُوا الصَّالِحَاتِ ولُولَٰئِكَ اَصۡحَابُ الۡجَنَّۃِ ۚ هُمۡ فِيهَا خَالِدُونَ আর যারা ঈমান এনেছে এবং নেক আমল করেছে, তারা জান্নাতের অধিবাসী। তারা সেখানে হবে স্থায়ী[1]।[সূরা বাকারা: ৮২]

সোমবার, ২১ মার্চ ২০২২, ১৬:৪৫

জান্নাত বিষয়ক আয়াতসমূহ - ২য় পর্ব

আর আমি বললাম, ‘হে আদম, তুমি ও তোমার স্ত্রী(১) জান্নাতে বসবাস কর এবং তা থেকে আহার কর স্বাচ্ছন্দ্যে, তোমাদের ইচ্ছানুযায়ী এবং এই গাছটির নিকটবর্তী হয়ো না(২), তাহলে তোমরা যালিমদের(৩) অন্তর্ভুক্ত হয়ে যাবে।[সূরা বাকারা: ৩৫]

রোববার, ২০ মার্চ ২০২২, ২০:০০

কুরআন কারীমের নূর ও হেদায়েত গ্রহণই সফলতার একমাত্র পথ

মহান আল্লাহ রাব্বুল আলামীনের নৈকট্য লাভের সহজ ও সুন্দরতম মাধ্যম হল কুরআন মাজীদ। অধিক পরিমাণে কুরআন তিলাওয়াত করা, অন্যের তিলাওয়াত শোনা, আয়াতের অর্থ, ভাব ও মর্ম নিয়ে চিন্তা ফিকির করা- এসবই বান্দাকে আল্লাহর নৈকট্য লাভে সহায়তা করে। আল্লাহর পরিচয় লাভ ও তাঁর প্রতি আপনত্ব অনুভবে সাহায্য করে। কারণ, কুরআন আল্লাহর কালাম। তাঁর পক্ষ থেকে বান্দার প্রতি প্রেরিত বার্তা। যেখানে তিনি পরম মমতায় বান্দাকে সম্বোধন করেছেন। উপদেশ দিয়েছেন। কল্যাণের পথ নির্দেশ করেছেন। মন্দ ও ক্ষতিকর বিষয়ে সতর্ক করেছেন। নবী ও রাসূলদের গল্প বলেছেন। সাহাবায়ে কেরামের ঘটনা উল্লেখ করেছেন। পূর্বের বিভিন্ন জাতি-গোষ্ঠীর কর্ম-পরিণতি ও উত্থান-পতনের ইতিবৃত্ত জানিয়েছেন। সর্বোপরি ইহ-পরকালীন জীবনে সফলতা লাভের পথ ও পন্থা বলে দিয়েছেন। এসব এত সহজ ও সাবলীলভাবে পেশ করেছেন যে, সবাই বুঝতে পারে। এত চমৎকার শব্দ, বাক্য ও শৈলী ব্যবহার করেছেন যে, সবাই তার মাধুর্য অনুভব করতে পারে।

শনিবার, ১৯ মার্চ ২০২২, ২৩:৩৫

জান্নাত বিষয়ক আয়াতসমূহ - ১ম পর্ব

যারা ঈমান আনে ও সৎকর্ম করে তাদেরকে সুসংবাদ দাও যে, তাদের জন্য আছে জান্নাত, যার নিম্নদেশে নদীসমূহ প্রবাহিত(১)। তাদেরকে যখনই ফলমূল খেতে দেয়া হবে, তখনই তারা বলবে, আমাদেরকে পূর্বে জীবিকা হিসেবে যা দেয়া হতো, এতো তারই মতো(২)। একই রকম ফল তাদেরকে দেয়া হবে এবং সেখানে রয়েছে তাদের জন্য পবিত্র সঙ্গিণী(৩), তারা সেখানে চিরস্থায়ী হবে(৪)। [সূরা বাকারা: ২৫]

শনিবার, ১৯ মার্চ ২০২২, ২১:০৫