বুধবার ৩০ নভেম্বর ২০২২, অগ্রাহায়ণ ১৬ ১৪২৯, ০৬ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪

ঈমানী দুর্বলতা কাটানোর ১০ আমল

প্রিয় পাঠক/পাঠিকা! ঈমানী দুর্বলতার একটি লক্ষণ হলো গুনাহ ও হারাম কাজে লিপ্ত হওয়া। এর প্রতিকার হিসেবে আমরা আপনাকে দশটি পরামর্শ দিচ্ছি। আশা করি, আমাদের পরামর্শ গুরুত্বসহ গ্রহণ করবেন এবং এক্ষেত্রে গড়িমসি ও অলসতা পরিহার করবেন। মনে রাখবেন, ঈমান হলো বান্দা ও আল্লাহর মধ্যকার ব্যাপার। তাই ঈমানী দুর্বলতা কাটাতে নিজ গরজেই এগোতে হবে। অন্য কেউ মুখে তুলে খাইয়ে দিবে না।

সোমবার, ২৮ নভেম্বর ২০২২, ২৩:৩৬

‘দান করেছি লুকমানকে হিকমাহ...’ : হিকমাহ ও শোকরগোযারি

সূরা লুকমানের একটি গুরুত্বপূর্ণ অংশে লুকমান আ.-এর উপদেশসমূহ বর্ণিত হয়েছে। আল্লাহ তাআলা তাঁর এই প্রিয় বান্দার প্রজ্ঞাপূর্ণ কিছু কথা কুরআনে বর্ণনা করেছেন। যেন মানুষ তা গ্রহণ করে এবং উপকৃত হয়। এই অংশের কারণে এই সূরার নাম ‘সূরা লুকমান’।

শনিবার, ২৬ নভেম্বর ২০২২, ২১:৩৮

‘কাপড় তো ঠিক নেই’!

আল্লাহর রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের এক জ্যোতির্ময় বাণী- الطُّهُورُ شَطْرُ الْإِيمَانِ ‘পবিত্রতা ঈমানের অর্ধেক।’ বাক্যটি এক দীর্ঘ হাদীসের প্রথম অংশ, যা তাহারাত ও পবিত্রতার গুরুত্ব বর্ণনা করছে।[1]

শনিবার, ২৬ নভেম্বর ২০২২, ০৭:৩১

কুরআনে কারীম ও সাহাবায়ে কেরাম রাযিয়াল্লাহু আনহুম

কুরআনের অনুসরণ ও এর বিধি-বিধানের বাস্তবায়ন হযরত ইবনে আব্বাস রা. বলেন, যে ব্যক্তি কুরআন পড়বে, কুরআনের বিধি-বিধান অনুযায়ী আমল করবে, আল্লাহ তাআলা তাকে গোমরাহি থেকে রক্ষা করবেন এবং আখেরাতের আযাব থেকে মুক্তি দেবেন। আল্লাহ তাআলা ইরশাদ করেছেন- فَمَنِ اتَّبَعَ هُدَايَ فَلَا يَضِلُّ وَلَا يَشْقَى যে আমার পথনির্দেশক কিতাবের অনুসরণ করবে, সে পথভ্রষ্ট কিংবা হতভাগা হবে না। -সূরা ত্বহা (২০) : ১২৩

বৃহস্পতিবার, ২৪ নভেম্বর ২০২২, ০৬:২০
কুরআনে কারীম ও সাহাবায়ে কেরাম রাযিয়াল্লাহু আনহুম

সাহাবায়ে কেরামের তিলাওয়াত কুরআনেরঅন্যতম গুরুত্বপূর্ণ হক হল অধিক পরিমাণে তিলাওয়াত করা। কোনো কোনো দিক থেকে যিকরুল্লাহর সর্বশ্রেষ্ঠ প্রকার হল তিলাওয়াত। যারা কুরআনে কারীমের তিলাওয়াতে মশগুল থাকে, তাদের প্রশংসায় ইরশাদ হয়েছে- اِنَّ الَّذِیْنَ یَتْلُوْنَ كِتٰبَ اللهِ وَ اَقَامُوا الصَّلٰوةَ وَ اَنْفَقُوْا مِمَّا رَزَقْنٰهُمْ سِرًّا وَّ عَلَانِیَةً یَّرْجُوْنَ تِجَارَةً لَّنْ تَبُوْرَ   لِیُوَفِّیَهُمْ اُجُوْرَهُمْ وَ یَزِیْدَهُمْ مِّنْ فَضْلِهٖ   اِنَّهٗ غَفُوْرٌ شَكُوْرٌ .

রোববার, ২০ নভেম্বর ২০২২, ১৮:৪৭
আমাদের দ্বীনের রুচি ও বৈশিষ্ট্য

পৃথিবীর প্রতিটি প্রাণী ও বর্ধনশীল বস্তুরই আছে নিজস্ব রূপ-গুণ, আকৃতি-প্রকৃতি। এই আকৃতি-প্রকৃতি দ্বারাই গঠিত হয় ঐ বস্তুর সত্তা এবং এই রূপ-গুণই বস্তুটিকে আলাদা করে অন্য সকল বস্তু থেকে। এই কথা যেমন প্রকৃতির বস্তুনিচয়ের ক্ষেত্রে সত্য তেমনি সত্য ব্যক্তি ও সমাজ, জাতি ও সম্প্রদায় এবং ধর্ম ও দর্শনের ক্ষেত্রেও। এই সকল কিছুরই এমন কিছু নিজস্ব বৈশিষ্ট্য ও প্রকাশ্য লক্ষণ রয়েছে, যা এদেরকে সকলের কাছে স্বতন্ত্রভাবে চিহ্নিত করে। এখন দ্বীন-ইসলাম, যা কামিল দ্বীন ও পূর্ণাঙ্গ জীবন-ব্যবস্থা; এর বৈশিষ্ট্য ও কাঠামো কী তা জানার ও বোঝার কৌতুহল নিতান্তই স্বাভাবিক এবং এই অনুসন্ধান ও গবেষণায় প্রবৃত্ত হওয়ার অধিকারও একজনের রয়েছে। দ্বীন-ইসলাম সম্পর্কে বিস্তারিত জানার আগে এবং এর শিক্ষা ও নির্দেশনা, নীতি ও বিধানের বিশদ অধ্যয়নের আগে আমাদের এই বিষয়টি সম্পর্কে অবগত হতে হবে। কারণ, দ্বীনের পূর্ণ সুফল পাওয়ার এবং নিজেকে এর রঙে রাঙিয়ে তোলার এটিই স্বাভাবিক উপায়। সবার আগে আমাদের বুঝতে হবে যে, এই দ্বীন আমরা কাদের সূত্রে লাভ করেছি।

বুধবার, ১৬ নভেম্বর ২০২২, ০৮:১৫

সাহাবায়ে কেরাম রাযিয়াল্লাহু আনহুম কিছু দিক কিছু দৃষ্টান্ত

সাহাবায়ে কেরামের তিলাওয়াত কুরআনেরঅন্যতম গুরুত্বপূর্ণ হক হল অধিক পরিমাণে তিলাওয়াত করা। কোনো কোনো দিক থেকে যিকরুল্লাহর সর্বশ্রেষ্ঠ প্রকার হল তিলাওয়াত। যারা কুরআনে কারীমের তিলাওয়াতে মশগুল থাকে, তাদের প্রশংসায় ইরশাদ হয়েছে- اِنَّ الَّذِیْنَ یَتْلُوْنَ كِتٰبَ اللهِ وَ اَقَامُوا الصَّلٰوةَ وَ اَنْفَقُوْا مِمَّا رَزَقْنٰهُمْ سِرًّا وَّ عَلَانِیَةً یَّرْجُوْنَ تِجَارَةً لَّنْ تَبُوْرَ لِیُوَفِّیَهُمْ اُجُوْرَهُمْ وَ یَزِیْدَهُمْ مِّنْ فَضْلِهٖ اِنَّهٗ غَفُوْرٌ شَكُوْرٌ . যারা আল্লাহর কিতাব তিলাওয়াত করে, নামায কায়েম করে এবং আমি তাদের যা দিয়েছি, তা থেকে গোপনে ও প্রকাশ্যে ব্যয় করে- তারা এমন ব্যবসার প্রত্যাশা রাখে, যা ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার নয়, যাতে তিনি তাদেরকে তাদের পুরস্কার পুরোপুরি দান করেন এবং নিজ অনুগ্রহে তাদেরকে আরো বেশি দেন। নিশ্চয় তিনি অতি ক্ষমাশীল, গুণগ্রাহী। -সূরা ফাতির (৩৫) : ২৯-৩০

শনিবার, ১২ নভেম্বর ২০২২, ১৮:৪১

তুর পাহাড়ে এক সন্ধ্যা

একদিন এক সহপাঠী ফোন করলেন, হাল পুরসির পর বললেন, মদিনাতুল বুউস থেকে ইত্তেহাদে নাইযিরিয়া (নাইযিরিয়ান ছাত্রদের সংগঠন)-এর পক্ষ হতে একটি রিহলা (শিক্ষাসফর) হতে পারে। জিজ্ঞাসা করলাম রিহলা কোথায়? তিনি বললেন, ‘তুরে সাইনা’। নামটি শোনামাত্র আমার ভিতরে এক অদ্ভুত কম্পন সৃষ্টি হলো। জিজ্ঞাসা করলাম, বাংলাদেশী ছাত্র ভাইরা যাচ্ছেন? তিনি বললেন হাঁ। আমি আবার জিজ্ঞাসা করলাম, আপনি যাচ্ছেন? তিনি বললেন ইনশাআল্লাহ। কোনো পরামর্শ ছাড়াই বেইখতিয়ার বলে ফেললাম, যদি কোনো সুযোগ থাকে তাহলে আমাকে জানাবেন। তিনি বললেন, ঠিক আছে। সফরের একদিন আগে এশার পর মদিনাতুল বুউসের মাযহার ভাই ফোন করলেন এবং কোনো ভূমিকা ছাড়াই বললেন, আপনি কি সফরের জন্য প্রস্তুত? আমিও বলে ফেললাম- ইনশাআল্লাহ।

শনিবার, ১২ নভেম্বর ২০২২, ০৫:০৮

হে আল্লাহর বান্দারা! মা-বাবার প্রতি সদাচারী হোন

বিগত ১৩ জুমাদাল উলা ১৪৪৩ হিজরী শুক্রবার মাসজিদুল হারামে শায়েখ শুরাইম হাফিযাহুল্লাহ মা-বাবার সঙ্গে সদাচার বিষয়ক এক মর্মস্পর্ষী খুতবা দেন। খুতবায় তিনি যেমন কেঁদেছেন, তেমনি কাঁদিয়েছেন মুসল্লীবৃন্দকেও। সে খুতবায় মাসিক আলকাউসারের সম্পাদক মহোদয়ও উপস্থিত ছিলেন। দেশে ফেরার পর তিনি আমাদেরকে বয়ানের সারমর্ম শোনান। আমাকে বলেন, দেখো বয়ানটি আলকাউসারের পাঠকদের জন্য অনুবাদ করা যায় কি না। সম্পাদক মহোদয়ের বিবরণ এতটাই চিত্তাকর্ষক ছিল যে, সঙ্গে সঙ্গে নেট থেকে খুতবাটি খুঁজে বের করি। ঘটনাক্রমে সেদিন ঢাকায় আমার দীর্ঘ কাজ ছিল। যানজট আর জনজটে নাভিশ্বাস তোলা ঢাকায় সঙ্গে করে খুতবাটি নিয়ে যাই। এত গাড়ি, এত মানুষ, এত শোরগোলের মধ্যেও বয়ানটি পড়তে গিয়ে আমার মনে হল, জনমানবহীন সুশীতল কোনো উদ্যানে আমি শায়েখ শুরাইমের মন গলানো খুতবায় হারিয়ে গেছি। ঢাকায় কাজ শেষ করতে করতে অনেক রাত। সে রাতেই ফজর পর্যন্ত একটানা বয়ানের অনুবাদ শেষ করি। সঙ্গে কিছু হাওয়ালা যুক্ত করে দেই। কাজ শেষ করে মনে হল, মা-বাবার প্রতি ভালবাসার অপূর্ব এক সঞ্চয় মনের ভেতর জায়গা করে নিয়েছে। যে সঞ্চয় আমৃত্যু পাথেয় জোগাবে। মনের মধ্যে সুখের এক অনুভূতি আমাকে আপ্লুত করে রেখেছিল। সুখটা হারিয়ে যায় কি না সে ভয়ে কাউকে বলতেও পারছিলাম না। সম্পাদক মহোদয়কে ছোট্ট করে শুধু একটি বার্তা লিখলাম, বয়ানটি পড়ে মা-বাবার প্রতিই দায়িত্ব বেড়ে গেছে। যদিও আমার সাধ্য খুবই সীমিত। -অনুবাদক

মঙ্গলবার, ১ নভেম্বর ২০২২, ০৭:০৩

পবিত্র কুরআনে আম্বিয়া আলাইহিমুস সালাম-এর দুআ

কুরআন মাজীদে ছাব্বিশজন নবী-রাসূলের নাম সুস্পষ্ট ভাষায় এসেছে। নাম ছাড়া প্রসঙ্গ এসেছে আরো কয়েকজনের। আল্লাহ তাআলা এই নবী ও রাসূলদের মধ্যে কারো কথা সংক্ষিপ্তভাবে বলেছেন, আবার কারো বিবরণ বিস্তারিতভাবে দিয়েছেন।

বৃহস্পতিবার, ২০ অক্টোবর ২০২২, ২২:৫৬

আল-কুরআন সংরক্ষণ: স্রষ্টার বিস্ময়কর ব্যবস্থা

আল্লাহ রাব্বুল আলামীন তাঁর এ ওয়াদা পূর্ণ করেছেন এবং তাঁর কিতাব হেফাজতের বিস্ময়কর ব্যবস্থা গ্রহণ করেছেন। ফলে কুরআনের শব্দ সংরক্ষিত, অর্থ সংরক্ষিত, লিখনপদ্ধতি সংরক্ষিত, কুরআনের আমলিরূপ সংরক্ষিত, যে ভাষায় কুরআন অবতীর্ণ হয়েছে সে ভাষা সংরক্ষিত, এর পরিবেশ-পারিপার্শ্বিকতা সংরক্ষিত, যে মহান ব্যক্তিত্বের ওপর তা অবর্তীণ হয়েছিল তাঁর জীবনচরিত সংরক্ষিত, এমনকি যাদেরকে সম্বোধন করে তা অবতীর্ণ হয় তাদের জীবনেতিহাস পর্যন্ত সংরক্ষিত আছে। মোটকথা, আল্লাহ তাআলা কুরআনে কারীম হেফাজতের জন্য যত উপায় হতে পারে সকল উপায়ে তা সংরক্ষিত হয়েছে।

বৃহস্পতিবার, ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২২, ০৪:৫২

জান্নাত বিষয়ক আয়াতসমূহ

আর যারা ঈমান এনেছে এবং নেক আমল করেছে, অচিরেই আমি তাদেরকে প্রবেশ করাব জান্নাতসমূহে, যার তলদেশে প্রবাহিত রয়েছে নহরসমূহ। সেখানে তারা হবে স্থায়ী। সেখানে তাদের জন্য রয়েছে পবিত্র স্ত্রীগণ এবং তাদেরকে আমি প্রবেশ করাব বিস্তৃত ঘন ছায়ায়।  (সূরা নিসা: ৫৭)

শুক্রবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১৬:৫৪

কুরআনের আলোকে নামায না পড়া ও নামাযের ব্যাপারে উদাসীনতার পরিণতি

কোনো কাজের উপর গুরুত্বারোপের একটি পদ্ধতি হল, কাজটি করার জন্য উৎসাহ দেওয়া। আরেকটি পদ্ধতি হল, কাজটি না করার পরিণতি সম্পর্কে সতর্ক ও ভীতি প্রদর্শন করা। কোনো কিছুর গুরুত্ব বোঝানোর জন্য এ দুই পদ্ধতির যে কোনো একটি অবলম্বন করা যায়। তবে তা পূর্ণতা পায় যখন উভয় পদ্ধতি গ্রহণ করা হয়।

মঙ্গলবার, ২০ সেপ্টেম্বর ২০২২, ০০:১৫

কুরআন তিলাওয়াত: মহান একটি আমল

কুরআন মাজীদ হল হেদায়েতগ্রন্থ। হযরত মুহাম্মাদ মুস্তফা সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের পর থেকে কিয়ামত পর্যন্ত আগত সকল যুগের, সকল দেশের, সকল ভাষা, বর্ণ, গোত্র, পরিবেশ ও স্বভাবের মানুষের জন্য কুরআন হেদায়েত ও পথপ্রদর্শক। সেজন্য কুরআন নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের শ্রেষ্ঠ মুজেযা।

রোববার, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২২, ২৩:৩৬

আলকুরআনের দৃষ্টিতে অভিশপ্ত যারা

বিশ্ব মানবতার মুক্তির পয়গাম আলকুরআন। মানবজাতিকে সর্বাধিক সরল ও সঠিক পথের দিশা দিতে আল্লাহ তাআলা সর্বশেষ নবী, খাতামুন্নাবিয়্যীন হযরত মুহাম্মাদ মুস্তফা সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের প্রতি নাযিল করেছেন এ মহাগ্রন্থ। হক-বাতিল, সত্য-মিথ্যা, ন্যায়-অন্যায়, কল্যাণ-অকল্যাণ, লাভ-ক্ষতি ও আলো-অন্ধকারের মাঝে পার্থক্যরেখা টেনে দেওয়ার জন্য অবতীর্ণ হয়েছে আল্লাহ তাআলার এ শাশ্বত ও চিরন্তন বাণী।

বৃহস্পতিবার, ১৫ সেপ্টেম্বর ২০২২, ২২:০২

সারা লরেন: একটি আয়াত যাঁকে ইসলামের পথে অনুপ্রাণিত করেছে

সারা লরেন। একজন বৃটিশ সাংবাদিক, ব্রডকাস্টার এবং মানবাধিকার কর্মী। তাঁর জন্ম ইংল্যান্ডের একটি খ্রিস্টান পরিবারে। বাবা-মা কেউই ধর্ম তেমন মানতেন না। বাবা ছিলেন মদ্যপ, মা ছিলেন একজন ফ্যাশন মডেল। কিন্তু তিনি ছোটবেলা থেকেই বিশ্বাস করতেন, এ জগতের সৃষ্টিকর্তা একজন অবশ্যই আছেন।

মঙ্গলবার, ১৩ সেপ্টেম্বর ২০২২, ২২:৫৬