ব্রেকিং:
গত ২৪ ঘণ্টায় বিশ্বে ৫৯৩৩ জনের মৃত্যু, আক্রান্ত হয়েছেন ৩৭৯৭২৯ জন ৫জি’র যুগে প্রবেশ করতে যাচ্ছে বাংলাদেশ ২৪ ঘন্টায় ২২১ জন ডেঙ্গু রোগী হাসপাতালে ধেয়ে আসছে ঘূর্ণিঝড় গুলাব, ভারী বৃষ্টির শঙ্কা আগামী সোমবার আসবে ২৫ লাখ ডোজ ফাইজারের টিকা

সোমবার   ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২১,   আশ্বিন ১২ ১৪২৮,   ১৮ সফর ১৪৪৩

সর্বশেষ:
কুয়াকাটায় নির্দিষ্ট বাস টার্মিনাল না থাকায়, চরম যানজটে পর্যটকরা ইসরাইলি বাহিনীর গুলিতে ৪ ফিলিস্তিনি নিহত বগুড়ায় জিলা স্কুলের দশম শ্রেণির ২ শিক্ষার্থীর করোনা স্বাস্থ্যমন্ত্রী : আগামী ২৮ সেপ্টেম্বর থেকে গণটিকা প্রদান শুরু গোয়েন্দা নজরদারিতে রয়েছে ডজনখানেক ই-কমার্স প্রতিষ্ঠান দেশের সকল সিঙ্গেল রেল লাইনকে পর্যায়ক্রমে ডাবল করা হচ্ছে ডিএসই’র লেনদেনে শীর্ষে রয়েছে বেক্সিমকো বাণিজ্যিক উন্নয়নে প্রবাসীদের সহযোগিতা চাইলো এফবিসিসিআই আসামে মুসলিম নিধন নিয়ে পাকিস্তানের প্রতিবাদ বিমানবন্দরে করোনা পরীক্ষার ল্যাব প্রস্তুত জাতিসংঘে প্রধানমন্ত্রীর ভাষণে মুগ্ধ মার্কিন রাষ্ট্রদূত
২৭

হাদীসে বর্ণিত চিরন্তন মহৌষধ: কালোজিরা

প্রকাশিত: ৩০ আগস্ট ২০২১  

হযরত আবু হুরাইরা (রা.) থেকে বর্ণিত, আমি রাসূল (সা.) কে বলতে শুনেছি,

“মৃত্যু ব্যতীত আর সকল রোগের প্রতিষেধক কালোজিরার মধ্যে রয়েছে।” (বুখারী)


রাসূল (সা.) এর এই হাদীসের প্রেক্ষিতে শত শত বছর ধরে মুসলমানদের মধ্যে কালোজিরার ব্যবহার প্রচলিত রয়েছে।

বিশ্বজুড়ে কালোজিরার ব্যবহার তিন হাজার বছর ধরে প্রচলিত রয়েছে। রাসূল (সা.) এর বর্ণিত ঔষধসমূহের মধ্যে কালোজিরা এক অনন্য স্থান দখল করে আছে।

কুরআন ও হাদীসে বর্ণিত বিভিন্ন ঔষধি উদ্ভিদ ও প্রাকৃতিক প্রতিষেধক সম্পর্কে কুরআন ও হাদীসে সংক্ষেপে উল্লেখ করা হয়েছে। পরবর্তীতে ইবনে সিনা ও ইবনে রুশদ সহ অন্যান্য মুসলিম চিকিৎসাবিজ্ঞানী এগুলোর গুনাগুন বর্ণনা করে বিস্তারিত বিবরণ প্রদান করেন।

কালোজিরাই একমাত্র প্রতিষেধক যার সম্পর্কে হাদীসে উল্লেখ করা হয়েছে মৃত্যু ছাড়া সকল রোগের প্রতিষেধক হিসেবে।

রাসূল (সা.) এর বর্ণিত এটি অনন্য এক প্রতিষেধক। রাসূল (সা.) এর পূর্বে এটির ব্যবহার খুব জনপ্রিয় ছিলনা।   রাসূল (সা.) এর হাতেই কালোজিরার ব্যবহার বিপুলভাবে ছড়িয়ে পড়ে। তার পরবর্তীতে কালোজিরা সম্পর্কে মুসলিম-অমুসলিম সকল চিকিৎসাবিজ্ঞানীই গবেষণা করেন।

রাসূল (সা.) এর পূর্বে চিকিৎসাক্ষেত্রে চারশত প্রকার ঔষধি উদ্ভিদের ব্যবহার প্রচলিত ছিল এবং গ্যালেন ও হিপোক্রেটাসের মত প্রাচীন চিকিৎসাবিজ্ঞানীদের হাতে তা লিপিবদ্ধ হয়েছিল। সেখানে কালোজিরার ব্যবহার খুব প্রচলিত ছিলনা।

রাসূল (সা.) এর সাথে সংশ্লিষ্টতার কারনে কালোজিরা ‘রাসূলের ঔষধ’ হিসেবে অধিক পরিচিতি লাভ করে।

কালোজিরার উপকারিতা বর্ণনাই শুধু নয়, রাসূল (সা.) কালোজিরা ব্যবহারের নির্দেশনাও দিয়েছেন। রাসূল (সা.) এর চিকিৎসা সংক্রান্ত বিভিন্ন হাদীসে এই নির্দেশনা পাওয়া যায়।

রাসূল (সা.) এর গুরুত্ব প্রদানের কারনে মুসলিম ইতিহাসে এমন কোন যুগ থাকেনি যখন মুসলিম চিকিৎসাবিজ্ঞানীরা কালোজিরা নিয়ে গবেষণা করেননি।

রাসূল (সা.) এর সুন্নাহ বিবেচনার বিশ্বাস থেকে চিকিৎসাক্ষেত্রে মুসলমানদের মধ্যে কালোজিরার বিপুল ব্যবহার হয়ে আসছে।

যদিও, হাজার বছর ধরে এটি রান্নার কাজে ব্যবহৃত হয়ে আসছে, ফার্মেসীর ক্ষেত্রেও কালোজিরার ব্যবহার উপকারী।

কালোজিরার মধ্যে একশতটির অধিক মূল্যবান উপাদান রয়েছে। ফ্যাটি এসিড, প্রোটিন, কার্বোহাইড্রেট সহ বিভিন্ন ভিটামিন ও খনিজ পদার্থের অবস্থান কালোজিরার মধ্যে রয়েছে।

স্টেরোল বিশেষ করে বিটা-স্টিওস্টেরলে কালোজিরা বিশেষভাবে সমৃদ্ধ। বিভিন্ন পোকার আক্রমন প্রতিহত করতে এটি ব্যবহৃত হতে পারে।

ভারতীয় রান্নায় এটি ব্যপকভাবে ব্যবহৃত হয়। বিশেষ করে গরম মশলা ও পাঁচফোরনের সাথে মিশ্রিত হয়ে কালোজিরা বিভিন্ন রান্নায় ব্যবহৃত হচ্ছে। এছাড়া বায়ুনাশক ও ক্লান্তিনাশক ঔষধি হিসেবে ভারতে এর ব্যবহার প্রচলিত আছে। পাশাপাশি গর্ভকালীন জটিলতা দূর করতে ও নবজাকের জন্য মায়ের দুধ সরবরাহ সহজ করতে কালোজিরা ব্যবহৃত হয়ে আসছে।

সকল রোগের ঔষধ হলেও সতর্কতার সাথে কালোজিরার ব্যবহার করা উচিত। কেননা কালোজিরার মধ্যে ম্যালানথিন, নিজিলাইন, ট্যানিন সহ বিভিন্ন উপাদান রয়েছে, যেগুলো কালোজিরার অধিক ব্যবহারে পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া সৃষ্টি করতে পারে। সুতরাং, কালোজিরার ব্যবহারের ক্ষেত্রে পরিমিত হারে ব্যবহার করা প্রয়োজন।


এই বিভাগের আরো খবর