রোববার ২২ মে ২০২২, জ্যৈষ্ঠ ৭ ১৪২৯, ২০ শাওয়াল ১৪৪৩

ইসলাম

সং স্কৃ তি: সংস্কৃতির নামে ভুল পদক্ষেপ চলছেই

বখতিয়ার

 আপডেট: ২০:৫৫, ৩১ ডিসেম্বর ২০২১

সং স্কৃ তি: সংস্কৃতির নামে ভুল পদক্ষেপ চলছেই

সংস্কৃতির নামে হঠাৎ উন্মাদনার এক অদ্ভুত সময় চলছে দেশে। গত দেড় দশক ধরে এমন উন্মাদনাময় সংস্কৃতির উত্তেজনায় মাঝে মাঝেই দেশ কেঁপে উঠেছে। কখনো থার্টি ফার্স্ট নাইট, কখনো ভালবাসা দিবসের নামে বহু ছোট-বড় ঝড় বয়ে গিয়েছে। গত ক’বছর যাবত শুরু হয়েছে পয়লা বৈশাখের নামে নতুন তুফান। পয়লা বৈশাখের উদযাপনের নামে ঢাকাসহ বিভিন্ন জেলা শহরে যা যা ঘটে থাকে তার সবকিছুর পেছনে বাঙালী সংস্কৃতি আর ঐতিহ্যের নাম ভাঙ্গানো হয়। কিন্তু ঘটানো হয় এবং ঘটে যায় নানা ঘটনা-দুর্ঘটনা।

 

পত্রিকার পাতা থেকে এমন দুটি ঘটনার নমুনা দেখা যেতে পারে। ১৬ এপ্রিল প্রথম আলোর ৫ পাতায় ছাপা হওয়া সংবাদটির প্রধান অংশ নিচে দেখুন। পান্তা-ইলিশ খেয়ে কর্মকর্তারা অসুস্থ পয়লা বৈশাখের পান্তা-ইলিশ খেয়ে বরগুনার আমতলী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাসহ (ইউএনও) উপজেলা প্রশাসনের প্রায় সব কর্মকর্তা ডায়রিয়া আক্রান্ত হয়েছেন। বুধবার রাতে বাসায় চিকিৎসা নিলেও গতকাল বৃহস্পতিবার অনেকে কর্মস'লে যোগ দিতে পারেননি। ফলে গতকাল উপজেলার বেশির ভাগ সরকারি কার্যালয়ে প্রশাসনিক কাজকর্ম হয়নি। স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, বাংলা নববর্ষ উপলক্ষে বুধবার সকালে আমতলী প্রেসক্লাবে পান্তা-ইলিশ খাওয়ার কর্মসূচিতে যোগ দেন ইউএনও নাসির-উদ-দৌলা, আমলি আদালতের ম্যাজিস্ট্রেট সফিকুল আলম, সহকারী পুলিশ সুপার আহসানুল আজিমসহ উপজেলা পর্যায়ের বিভিন্ন সরকারি কার্যালয়ের কর্মকর্তারা। পরে বাসায় ফিরে বিকেলে তারা পেটে ব্যথা অনুভব করেন। সন্ধ্যায় অনেকের বমি ও পাতলা পায়খানা শুরু হয়। আমতলী হাসপাতালের চিকিৎসকেরা কর্মকর্তাদের বাসায় বাসায় গিয়ে চিকিৎসা দেন। ইউএনও নাসির-উদ-দৌলা জানান, তিনি দুপুর থেকেই কিছুটা অস্বস্তি বোধ করতে থাকেন, রাত ১১ টার দিকে অসুস্থ হয়ে পড়েন।

 

উপজেলা আমলি আদালতের ম্যাজিস্ট্রেট শফিকুল আলম জানান, রাত নয়টার দিকে তাঁর বমি ও পাতলা পায়খানা শুরু হয়। এইভাবে সরকারী পুলিশ সুপার আহসানুল আজিম, সহকারী কমিশনার (ভূমি) আবু নাসের ভুইয়া, মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা বোরহান উদ্দিন, সমবায় কর্মকর্তা এবায়দুল হক, যুব উন্নয়ন কর্মকর্তা জাহাঙ্গীর আলম, সমাজ সেব কর্মকর্তা মঞ্জুরুল হাসান, ত্রাণ ও পুনর্বাসন কর্মকর্তা মঞ্জুরুল হাসান, নির্বাচন কর্মকর্তা আ.রশিদ, প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক জসিম সিকদার ও সাংবাদিক পরিতোষ কর্মকার অসুস্থ হয়ে পড়েন। গতকাল সব সরকারি- বেসরকারি কার্যালয় খোলা থাকলেও অসুস্থ থাকায় অধিকাংশ কার্যালয়ের প্রধানেরা কর্মস্থলে যোগ দিতে পারেননি। ফলে অনেকটা অঘোষিত ছুটি ভোগ করেন অন্য কর্মকর্তা-কর্মচারীরা। আরেকটি খবর-পর্যালোচনা ছাপা হয়েছে দৈনিক ২৮ এপ্রিল আমার দেশ-এর ৬ পাতায়। ‘নারীর সম্ভ্রম বিপন্ন ও ভুলুণ্ঠিত হচ্ছে এমনকি ভার্সিটিতেও’ শিরোনামের লেখাটির একটি ক্ষুদ্র অংশ দেখা যেতে পারে।

 

পহেলা বৈশাখের কিছু ঘটনারও উল্লেখ করা দরকার। নতুন বছরকে স্বাগত জানানোর জন্য ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্রলীগ কর্মীদের তৎপরতা শুরু হয়েছিল আগের রাত থেকে। ক্যাম্পাসের এমন কোনো সন্তানের কথা বলা যাবে না, যেখানে ছাত্রীরা আক্রান্ত ও নির্যাতিত না হয়েছে। সবচেয়ে ন্যাক্কারজনক নির্যাতন ঘটেছে রাজু ভাস্কর্যের সামনে। সেখানে জসীমউদ্দীন হল শাখা ছাত্রলীগ সভাপতির নেতৃত্বে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের নামে রীতিমত বাণিজ্যের আসর বসানো হয়েছিল। মেয়ে দেখলেই ঝাঁপিয়ে পড়েছে ছাত্রলীগের উঠতি ক্যাডাররা। প্রকাশিত খবরে জানা গেছে, বিলবোর্ডের আড়ালে নিয়ে অন্তত ১৫ তরুণীর শ্লীলতাহানি করেছে ছাত্রলীগের উঠতি ক্যাডাররা। আরও ১৫ থেকে ২০ তরুণী সম্পর্কে খবর প্রকাশিত হয়েছে যাদের প্রত্যেককে ‘সোনার ছেলেরা’ নির্যাতন করেছে। পুলিশ এ রকম জনা পনের মেয়েকে উদ্ধার করে যার যার বাসায় পৌঁছে দিয়ে এসেছে! সংস্কৃতি, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান নিয়ে এ দেশে যত উত্তেজনা ও মাতামাতি হয় তার বেশির ভাগের পেছনেই থাকে এ ধরনের ভুল ও বিচ্যুত কর্মকাণ্ডের মতলব।

 

শাশ্বত, পবিত্র, মহান আখ্যায়িত করে উদযাপনের নামে বিবেক ও মানবাতবিরোধী কাজে নামে পড়ে একদল মানুষ। সংস্কৃতির এই ভুল পদক্ষেপের কারণে এখন দেশের মানুষ দিশেহারা। কিন্তু তারপরও সংস্কৃতির নামে বিবেক ও মানবতাবিরোধী এসব অপরাধ চলছেই। এর রাশ টেনে ধরার কোনো উদ্যোগ দেখা যাচ্ছে না। সংস্কৃতি ও ঐতিহ্যের নাম নিয়ে ‘কিছু’ করতে গিয়ে ‘মহাকিছু’ ঘটালেও কেউ ‘টু’ শব্দটি করতে চান না।

 

আরও পড়ুন

মন্তব্য করুন: