ব্রেকিং:
প্রকাশ্যে অস্ত্রের মহড়া, দুজনকে কুপিয়ে জখম চুরি হওয়া নবজাতকের লাশ সেফটি ট্যাঙ্কে, মা-বাবা গ্রেফতার

রোববার   ২৯ নভেম্বর ২০২০,   অগ্রাহায়ণ ১৫ ১৪২৭,   ১২ রবিউস সানি ১৪৪২

সর্বশেষ:
রাজশাহীকে ৫ উইকেটে হারিয়ে বরিশালের প্রথম জয় যুক্তরাষ্টে ৭০০ গ্যাং সদস্য গ্রেফতার নারী ও শিশুকে জন্তু-জানোয়ারের সাথে তুলনা নেতানিয়াহুর ভারতে গায়ে আগুন দিয়ে ৩ কৃষকের আত্মহত্যার চেষ্টা বাড়ি থেকে ডেকে এনে ধর্ষণ, ছাত্রলীগ নেতা গ্রেফতার পরমাণুবিজ্ঞানী মোহসেন ফাখরিজাদেহকে হত্যা, প্রতিশোধের হুঙ্কার ইরান সেনাপ্রধানের
৬৪২

বিজ্ঞান: আমরা যেভাবে শব্দ শুনি

প্রকাশিত: ১৫ নভেম্বর ২০২০  

বাতাসে শব্দের উৎপত্তি হলে সেটি আমাদের কানের ফুটো দিয়ে এক্সটার্নাল মিটাসে আসে। এক্সটার্নাল মিটাস হচ্ছে কানের ফুটো থেকে শুরু করে ২৪ মি.মি. লম্বা একটা ক্যানেল। এ ক্যানেলের শেষ মাথায় থাকে একটা পাতলা, স্বচ্ছ পর্দা। যার নাম টিমপেনিক পর্দা। শব্দতরঙ্গ এক্সটার্নাল মিটাস দিয়ে গিয়ে সেই পর্দাতে আঘাত করে। ফলে পর্দাটি কেঁপে ওঠে। আমাদের কানে ছোট ছোট তিনটি হাড় আছে। এদের নাম ম্যালিয়াস, ইনকাস, স্টেপিস। এরা পরপর একটির সঙ্গে আরেকটি যুক্ত থাকে। টিমপেনিক পর্দাটি ম্যালিয়াসের সঙ্গে যুক্ত থাকে। শব্দতরঙ্গের আঘাতে যখন টিমপেনিক পর্দা কেঁপে ওঠে, সঙ্গে সঙ্গে এই তিনটি হাড়ও কেঁপে ওঠে। সবশেষে কম্পিত হয় স্টেপিস। স্টেপিসের কম্পনের ফলে একটি তরঙ্গমালা সৃষ্টি হয়ে স্ক্যালা ভেস্টিবুলির পেরিলিম্ফ এবং স্ক্যালা মিডিয়ার এন্ডোলিম্ফ হয়ে অর্গান অফ কর্টিতে আসে। অর্গান অফ কর্টি তখন শব্দ অনুভূতি ককলিয়ার নার্ভের মাধ্যমে মস্তিষ্কে পাঠায়। মস্তিষ্ক এ শব্দকে বিশ্লেষণ করে তার অর্থ উদঘাটন করে। এভাবেই আমরা শব্দ শুনি।


অনলাইন নিউজ পোর্টাল
অনলাইন নিউজ পোর্টাল