ব্রেকিং:
সংরক্ষিত নারী আসনের ভোট ৪ মার্চ ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় নির্বাচন উপলক্ষে ১৮ প্লাটুন বিজিবি মোতায়েন.

বুধবার   ১৩ নভেম্বর ২০১৯   কার্তিক ২৯ ১৪২৬  

সর্বশেষ:
সংরক্ষিত নারী আসনের ভোট ৪ মার্চ ওয়েজবোর্ডের বিষয়টিকে আমরা বিশেষভাবে গুরুত্ব দিচ্ছি
২২৬৯

আসনের এমপি হওয়ার দৌড়ে চট্টগ্রামের ১০ নেত্রী

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ১১ জানুয়ারি ২০১৯  

একাদশ জাতীয় সংসদের মন্ত্রিসভার মতো সংরক্ষিত মহিলা আসনে নতুন মুখকে অগ্রাধিকার দেয়া হবে বলে জানিয়েছে আওয়ামী লীগের একটি সূত্র। যারা দলের ও সরকারের দুর্দিনে ত্যাগ স্বীকার করেছেন, বিভিন্ন নির্বাচনী প্রচার-প্রচারণা ও সরকারের উন্নয়ন প্রচারে অবদান রেখেছেন। একইসঙ্গে দলের ও দলের সহযোগী সংগঠনে নিষ্ঠার সঙ্গে দায়িত্ব পালন করেছেন। দলীয় প্রধান শেখ হাসিনা তাদেরই মূল্যায়ন করবেন ।

 

যারা আলোচনায় আছেন তাদের মধ্যে সদ্য বিদায়ী সাংসদ কেন্দ্রীয় মহিলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি ওয়াসিকা আয়শা খান, চট্টগ্রাম উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য ও সাবেক সাংসদ রফিকুল আনোয়ারের কন্যা খাদিজাতুল আনোয়ার সনি, সুচিন্তা বাংলাদেশ চট্টগ্রাম বিভাগের সমন্বয়ক অ্যাডভোকেট জিনাত সোহানা চৌধুরী, দক্ষিণ জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সভানেত্রী ও সাবেক সংসদ সদস্য চেমন আরা তৈয়ব, উত্তর জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট বাসন্তী প্রভা পালিত, চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের সাবেক কাউন্সিলর রেখা আলম চৌধুরী, রেহেনা বেগম রানু, কক্সবাজার জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক নাজনীন সারোয়ার কাবেরী, মহানগর যুব মহিলা লীগের যুগ্ম আহ্বায়ক ও চট্টগ্রাম ওমেন চেম্বারের পরিচালক মোস্তারী মোর্শেদ স্মৃতি, চট্টগ্রাম ওমেন চেম্বারের পরিচালক নাজমা আক্তার মিতা।

 

ওয়াসিকা আয়শা খান আওয়ামী লীগের সাবেক প্রেসিডিয়াম সদস্য ও রাষ্ট্রদূত আতাউর রহমান খান কায়সারের কন্যা। দশম সংসদে তিনি সংরক্ষিত আসনের এমপি ছিলেন। এসময় তার ব্যাপক জনপ্রিয়তা ছড়িয়ে পড়ে চট্টগ্রাম জুড়ে। 
 

খাদিজাতুল আনোয়ার সনি তার বাবার মৃত্যুর পর দলের জন্য নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছেন। সরাসরি নির্বাচনে দলীয় মনোনয়ন চেয়েও তিনি পাননি। এই আসনে তরিকত ফেডারেশনের নজিবুল বশর মাইজভান্ডারীকে মনোনয়ন দিয়েছে দল। 

 

অ্যাডভোকেট জিনাত সোহানা চৌধুরী গত ১০ বছর ধরে দলের জন্য নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছেন। সরকারের ১০ বছরের উন্নয়ন সফলতা সর্বস্তরের মানুষের কাছে তুলে ধরে ব্যাপক সাড়া ফেলেছেন। এবার সংরক্ষিত আসনে মনোনয়ন পাবেন বলে মনে করছেন জিনাত সোহানা। তিনি সুচিন্তা বাংলাদেশ চট্টগ্রাম বিভাগের সমন্বয়ক হিসাবে দায়িত্ব পালন করছেন।

 

চেমন আরা তৈয়ব নবম সংসদের সংরক্ষিত নারী আসনের সংসদ সদস্য ছিলেন। দশম সংসদে তিনি মনোনয়ন না পেলেও তাকে দক্ষিণ জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সভাপতির দায়িত্ব দেওয়া হয়। 

 

অ্যাডভোকেট বাসন্তী প্রভা পালিত চট্টগ্রাম উত্তর জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদিকা। একাদশ জাতীয় নির্বাচনে তিনি সরাসরি নির্বাচনের জন্য মনোনয়ন চাইলেও মনোনয়ন পান মহাজোটের নেতা জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য ব্যারিস্টার আনিসুল ইসলাম মাহমুদ। 

 

রেখা আলম চৌধুরী চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের সাবেক প্যানেল মেয়র ও কাউন্সিলর। দুইবার কাউন্সিলর নির্বাচিত হন তিনি। 

 

এছাড়াও তিনি মেয়র নাছিরের চাচী শাশুড়ি। শিল্পপতি হিসাবেও পরিচিতি রয়েছে  চট্টগ্রাম ওমেন চেম্বারের এই পরিচালকের। 

 

অ্যাডভোকেট রেহেনা বেগম রানু চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের সাবেক কাউন্সিলর। নারী অধিকার ও বাল্য বিবাহ নিয়ে কাজ করে ব্যাপক জনপ্রিয়তা পেয়েছেন তিনি।


অনলাইন নিউজ পোর্টাল
অনলাইন নিউজ পোর্টাল
এই বিভাগের আরো খবর