ব্রেকিং:
সংরক্ষিত নারী আসনের ভোট ৪ মার্চ ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় নির্বাচন উপলক্ষে ১৮ প্লাটুন বিজিবি মোতায়েন.

সোমবার   ১৪ অক্টোবর ২০১৯   আশ্বিন ২৮ ১৪২৬  

সর্বশেষ:
সংরক্ষিত নারী আসনের ভোট ৪ মার্চ ওয়েজবোর্ডের বিষয়টিকে আমরা বিশেষভাবে গুরুত্ব দিচ্ছি
১৮২

চন্দনাইশে ‘সাথী ফসল’ ধনে পাতার জনপ্রিয়তা বাড়ছে  

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ২৩ জানুয়ারি ২০১৯  

শীতকালীন সবজি, মাছ, মাংসের স্বাদ দ্বিগুণ বাড়িয়ে দিতে ধনেপাতার বিকল্প নেই। তাই শহর কিংবা গ্রামাঞ্চল সব জায়গায় ধনে পাতার চাহিদা থাকে প্রচুর। বাজার শেষে ধনে পাতা ক্রয়ের কথা ভুলেন না গৃহকর্তারা। ব্যাপক হারে ধনে পাতার চাহিদা বেড়ে যাওয়ায় কৃষকরা অন্যান্য সবজির পাশাপাশি ‘সাথী ফসল’ হিসেবে ধনে পাতার চাষও শুরু করেছে।

 

চন্দনাইশ-সাতকানিয়ার কৃষকরাও পিছিয়ে নেই বাণিজ্যিক ভাবে ধনে পাতা চাষে। ফলে উপজেলার শঙ্খচর ও চাষাবাদযোগ্য জমিতে কৃষকরা ‘সাথী ফসল’ হিসেবে ব্যাপক হারে শুরু করেছে ধনেপাতার চাষ। বাজার মূল্যও ভালো পাওয়ায় ইতিমধ্যে আর্থিকভাবে লাভবান হয়ে ভাগ্যের পরিবর্তন ঘটিয়েছে অনেক চাষী।

 

উপজেলা কৃষি অধিদপ্তর সূত্রে জানা গেছে, বিগত কয়েক বছর ধরে শঙ্খতীরবর্তী দোহাজারী, ধোপাছড়ি, বৈলতলী, বরমা, বাজালিয়া, পুরানগড়, কালিয়াইশ, ধর্মপুর, খাগরিয়াসহ বেশকিছু ইউনিয়নে অন্যান্য সবজির পাশাপাশি ব্যাপক হারে ধনেপাতার চাষ করেছেন কৃষকরা। বীজ বপন করার ৩৫/৪০ দিনের মধ্যে ধনেপাতা তুলে বিক্রি করা যায় বলে কৃষকরা অধিক লাভবান হয়। বিশেষ করে এখানকার কৃষকরা তাদের স্থানীয় জাতের ধনে পাতাই চাষ করে থাকেন।

 

চলতি বছর চন্দনাইশে ৩৫ হেক্টর জমিতে ধনে পাতা আবাদের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হলেও লক্ষ্যমাত্রা ছাড়িয়ে প্রায় ৫০ হেক্টর জমিতে ধনে পাতার চাষ হয়েছে বলে ধারণা করছেন উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা হাসান ইমাম।

 

চাষী আবু বক্কর জানালেন, অল্প দিনের এই আবাদ লাভজনক হওয়ায় গত বছর এই ধনে পাতার চাষ করে অনেক চাষি আর্থিকভাবে লাভবান হয়েছে। রমজান মাসে ধনে পাতার চাহিদা বেশি থাকে বলেও জানালেন তিনি।


অনলাইন নিউজ পোর্টাল
অনলাইন নিউজ পোর্টাল
এই বিভাগের আরো খবর