ব্রেকিং:
সংরক্ষিত নারী আসনের ভোট ৪ মার্চ ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় নির্বাচন উপলক্ষে ১৮ প্লাটুন বিজিবি মোতায়েন.

মঙ্গলবার   ০৭ এপ্রিল ২০২০   চৈত্র ২৩ ১৪২৬  

সর্বশেষ:
সংরক্ষিত নারী আসনের ভোট ৪ মার্চ ওয়েজবোর্ডের বিষয়টিকে আমরা বিশেষভাবে গুরুত্ব দিচ্ছি
১৯৮৩

সাকা অনুসারী আসলাম চৌধুরীর বিরুদ্ধে সীতাকুণ্ড বিএনপি

নিজস্ব প্রতিবেদক

প্রকাশিত: ১ ডিসেম্বর ২০১৮  

চট্টগ্রাম-৪ আসনে বিএনপির মনোনয়ন পেয়েছেন বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব আসলাম চৌধুরী। চট্টগ্রাম বিএনপিতে যুদ্ধাপরাধী সাকা চৌধুরীর অনুসারী আসলামকে মনোনয়ন দেয়ায় স্থানীয় বিএনপির নেতাকর্মীরা ক্ষুব্ধ। তারা রাজাকার সাকার ঘনিষ্ঠ আসলামের পক্ষে কাজ করবে না বলে জানা গেছে। 

 

জানা গেছে, যুদ্ধাপরাধী সাকা চৌধুরীর সাথে ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক ছিল আসলাম চৌধুরীর। বিগত বিএনপি-জামায়াত সরকারের সময় এলাকায় সাকার নেতৃত্বে সংখ্যালঘু নির্যাতনে আসলাম চৌধুরীর ব্যাপক ভূমিকা ছিল। সাকা পরিবারের সকল অপকর্মে পাশে ছিলেন আসলাম। 

 

সীতাকুণ্ড বিএনপি নেতা পারভেজ মুন্না বলেন, যুদ্ধাপরাধী সাকার পক্ষে চট্টগ্রামের কোন বিএনপি নেতাকর্মী কাজ করবেন না। সাকার ঘনিষ্ঠ আসলাম চৌধুরীর পক্ষেও কাজ করার প্রশ্ন ওঠে না। তাছাড়া আসলাম চৌধুরীর বিরুদ্ধে শত শত কোটি টাকা আত্মসাতের অভিযোগ রয়েছে। এরকম দুর্নীতিবাজ নেতাকে চূড়ান্ত মনোনয়ন দিলে মানুষ বিএনপিকে ভোট দেবে না। তাই আসলাম চৌধুরীকে বাদ দিয়ে আযোগ্য নেতাকে মনোনয়ন দিতে হবে।   

 

বিগত ৫ জানুয়ারির জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আগে ও পরে সীতাকুণ্ড ও আশপাশের এলাকায় ব্যাপক নাশকতার নেপথ্য কারিগরের ভূমিকায় ছিলেন এই আসলাম চৌধুরী। এ সময় শুধু সীতাকুণ্ডে ভাঙচুর ও পুড়িয়ে দেওয়া হয় সহস্রাধিক কাভার্ড ভ্যান, ট্রাক ও যাত্রীবাহী বাস। ব্যাপক আগুন সন্ত্রাস সৃষ্টি করায় ঢাকা-চট্টগ্রামের সাধারণ যাত্রীদের মধ্যে আতঙ্কের দুর্গে পরিণত হয়েছিল সীতাকুণ্ড।  

 

জানা যায়, ওই সময় শিবিরের প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত ক্যাডারদের নিয়মিত আর্থিক সহায়তা ও গোলাবারুদের জোগান দিয়ে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়ক অচল করেন আসলাম চৌধুরী। 
 

বিএনপি নেতা আবু তাহের বিএসসি বলেন, আসলাম চৌধুরীর কাছে বিএনপির নেতাকর্মীদের চেয়ে শিবিরের গুরুত্ব বেশি। শিবিরের কর্মীদের আগুন সন্ত্রাসের কারণে বিএনপি কর্মীদের জেল খাটতে হয়েছে। আর এসব শিবির কর্মীদের আর্থিক সহায়তা দেন আসলাম চৌধুরী। সুতরাং দলের উচিত আসলাম চৌধুরীকে বাদ দিয়ে যোগ্য নেতাকে মনোনয়ন দেয়া। 

 

সূত্র জানায়, যুদ্ধাপরাধী সাকার সঙ্গী এবং শিবির তোষণকারী আসলাম চৌধুরীকে সমর্থন দেবে না স্থানীয় বিএনপি। আসলাম চৌধুরীকে বাদ দিয়ে অন্য প্রার্থীকে মনোনয়ন দেয়া না হলে স্থানীয় নেতাকর্মীরা বিদ্রোহী প্রার্থীর পক্ষে কাজ করবেন। এই অবস্থায় সীতাকুণ্ডে বিএনপির জয়ের কোন সম্ভাবনা দেখতে পাচ্ছেন না স্থানীয়রা।


অনলাইন নিউজ পোর্টাল
অনলাইন নিউজ পোর্টাল
এই বিভাগের আরো খবর