ব্রেকিং:
সংরক্ষিত নারী আসনের ভোট ৪ মার্চ ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় নির্বাচন উপলক্ষে ১৮ প্লাটুন বিজিবি মোতায়েন.

মঙ্গলবার   ১৫ অক্টোবর ২০১৯   আশ্বিন ২৯ ১৪২৬  

সর্বশেষ:
সংরক্ষিত নারী আসনের ভোট ৪ মার্চ ওয়েজবোর্ডের বিষয়টিকে আমরা বিশেষভাবে গুরুত্ব দিচ্ছি
১৪৬

রাঙ্গুনিয়ার চরে মিষ্টি আলুর বাম্পার ফলন, লাভবান কৃষক

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ৭ জানুয়ারি ২০১৯  

বছরের পর বছর খালি পড়ে থাকতো রাঙ্গুনিয়া উপজেলার ইসলামপুর ও রাজানগর ইউনিয়নের ইছামতি নদীর বুকে জেগে উঠা বিস্তীর্ণ চর। এখন সেই চরে আবাদ করা হচ্ছে সুস্বাদু মিষ্টি আলু। আর এতে আবাদ যোগ্য জমির পরিমাণ বেড়েছে , বেড়েছে কৃষকের আয়। উপজেলা কৃষি অফিসের পরামর্শে কৃষকরা স্বল্প পুঁজি বিনিয়োগ করে ইতিমধ্যেই লাভের মুখ দেখেছে। এভাবে মিষ্টি আলুতে বাড়তি আয় হচ্ছে কৃষকদের।


ইসলামপুর ইউনিয়নের সেগুনবাগিচা এলাকার কৃষক নজরুল ইসলাম তালুকদার বলেন, আগে এই এলাকায় ইছামতির চরগুলো খালি পড়ে থাকতো। এবার রাঙ্গুনিয়া উপজেলা কৃষি অফিসের কর্মকর্তাদের পরামর্শে এখানকার কৃষকরা এসব চরে মিষ্টি আলু চাষাবাদ করেছেন। ইতিমধ্যেই ফলন আসতে শুরু করেছে এবং এই চরে উৎপাদিত কয়েক মণ মিষ্টি আলু বিক্রি হয়েছে। এতে এ বছর কৃষকদের বাড়তি আয়ের সুযোগ হয়েছে। 


ইসলামপুর ইউনিয়নের উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা সহিদুজ্জামান সাহেদ বলেন, এলাকার কোথাও যাতে কোন পতিত জমি না থাকে, সেই লক্ষ্যে সকল পতিত জমিকে চাষের আওতায় আনতে, আমরা কাজ করে যাচ্ছি। আগে এসব নদীর চর পতিত থাকলেও এ বছর এসব চরে মিষ্টি আলুসহ মুলা, ফ্রেঞ্চবিন (ফরাস সিম), মিষ্টি কুমড়া চাষাবাদ হয়েছে। ইতিমধ্যে কৃষকরা এর সুফলও পেয়ে চলেছেন।


উপজেলার কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা জাহিদুর রহমান ইলিয়াছ বলেন, মিষ্টি আলু চাষাবাদে তেমন একটা সার প্রয়োগ করতে হয় না বলে খরচ কম। তাছাড়া এ ফসলে তেমন কোন রোগ বালাইও দেখা যায় না। তাই এই আবাদে অল্প পুঁজি ও শ্রমে অধিক লাভ পাওয়া যায়। বিশেষ করে চর এলাকায় মিষ্টি আলুর চাষাবাদ বেশ লাভজনক।


রাঙ্গুনিয়া পৌরসভার দক্ষিণ ঘাটচেকে কর্ণফুলী নদীর দাঙার চরের বিস্তীর্ণ এলাকায় মিষ্টি আলুর চাষ করেছেন কৃষক মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর। প্রতি বছর শীত মৌসুম এলেই এই ধরনের চাষাবাদ করে থাকেন বলে জানান তিনি। তার উৎপাদিত মিষ্টি আলু রাঙ্গুনিয়া সহ বিভিন্ন বাজারে সরবরাহ করে থাকেন এবং তিনি প্রচুর টাকা আয় করেন। তার মতো এই চরে আবদুল করিম, মো. রশিদ আহমদ সহ ১০-১৫ জন কৃষক মিষ্টি আলু চাষাবাদ করেন।


উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কারিমা আক্তার বলেন, চলতি বছর এ উপজেলায় প্রায় ২৫ হেক্টর জমিতে মিষ্টি আলুর চাষ হয়েছে। যার প্রায় সিংহ ভাগই চাষ হয়েছে উপজেলার ইসলামপুর ও রাজানগর ইউনিয়নে। মিষ্টি আলু অত্যন্ত পুষ্টিকর খাদ্য। সাধারণত বেলে মাটিতে আলু জাতীয় ফসল ভাল হয়। তাই চরাঞ্চলের মতো জমি আবাদের আওতায় এনে ভবিষ্যতে এই ধরনের আবাদ আরও বাড়ানো হবে। এতে কৃষকরা অল্প পুঁজি আর স্বল্প পরিশ্রমে অধিক মুনাফা অর্জনে সক্ষম হবে।


অনলাইন নিউজ পোর্টাল
অনলাইন নিউজ পোর্টাল
এই বিভাগের আরো খবর